আমাদের দেশটা যুদি এমন হইতো? 

 ইস আমাদের দেশটা যুদি এমন হইতো,নরওয়ে, সুইডেন, ডেনমার্ক কিংবা পচ্চিমা সকল দেশেরই একি ওবস্তা আসামি নাই তাই জেল বন্ধ। একেভারে বন্ধ কোন পুলিশও নেই কিংবা কোন সিকুরিটি দেখার জন্যও।তা আমি এমননি একটা জেলের কথা বলবো সেটা আমাদের এশিয়া কিন্তু তাদের নাই রিলিজিয়ন কোন ভেড়াবাদ,মেয়েরা শট পেন এবং টিশার্ট পড়িতেছে কিংবা রাস্তাঘাট হেঁটে হেঁটে সিগারেট ও ভিয়ার খাচ্ছে। ছেলেরা ভালো বেতনে ভালো  জব করছেন রিলিজিয়ন তাদের টেডিশনাল নট বিজনেস তাই কেওবা মানে  কেউবা না মানে নেই কোন হাংগামা।সিরনাক গেস্ট হাউজটার বেশি শুবিদার না। দুইটা রোম এক রোমে আমরা ১৩ জন থাকি আরেক রোম খালীই থাকে,কিন্তু এডাস টয়লেট নাই।আমাদের জন্য একজন সিকুরিটি থাকে সে খাবার এনে দেয় আর যতখন থাকে আমাদের সাথে  বসে কাড খেলে।আমাদের এখান থেকে ১০ /১৫ দিনের মধ্যে নেওয়ার কথা ছিলো কিন্তু  ক্লিয়ারেঞ্চ পাচ্ছে না আরজুলুম থেকে তাই নিয়ে যেতে পারছেন না।পুলিশ আমাদের আস্তে আস্তে খুভ ভালো বন্ধু হয়ে যাচ্ছে, ইউসুফ, মুরাদ,সিয়েন ও হায়দার প্রতিদিন আমাদের জন্য সিগারেট নিয়া আসতো। তারা ইরাকেরই একটা অংশ তারা জাতিতে কুর্দি।ইউসুফ এর বাবার বাড়ি কুর্দিস্তান। তাই প্রায় জিজ্ঞাস করতো আমাকে ইরাকের কেমন ক্ষতি হইছে এই যুদ্ধে।ক্ষতি কি? আর সব বলা যায় কি? সে খুভ কান্না করতো আমি সান্তানা দিতাম তদের যুদ্ধ শেষ করে আরছি,দেখেইছ সবঠিক হয়ে যাবে।আমাদের তের জনের ১২ জন আমেরিকান কেম্পে কাজ করতো।ইউসুফ আমার কথা শুনে খুভ খুশি হতো।এদিক দিয়ে বেসিকটাস ও ফেনারভাসেস  ফাইনালে উড়ছে তাই হায়দার ও মুরাদ সাপোর্টারস  যোগাড় করে।মুরাদ এর যেদিন ডিউটি পড়তো সেদিন সে ভি আই পি খাবার নিয়া আসতো আবার হায়দার যেদিন পড়তো সেও আর নিজের পয়সায় সিগারেট দিতো খাঁয় তরা কিন্তু সবাই আমাদের দলের সাপোর্টারস হেয় মুরাদ আসলে ১৩ জন মুরাদ এর বেসিকটাস আর হায়দার আসলে ১৩ জন হায়দার ফেনারভাসন সাপোর্টারস। সবকিছুই শেষ আছে খেলাও ফাইনাল আছে দেন আমাদের ফাইনাল খেলার দিন ১০/১২ জন আসে হায়দার ও মুরাদ এর সাপোর্ট দেখতে।প্রথমে মুরাদ আসে ১৩ জন সাপোর্টা পারে হায়দার আসে ৬ জন হাত নামাই নেই। আমারা বলি ফেনারভারসন ৬ জন আর কি? হাসা হাসি তরা দূরনিতি দূরান্ত করছ ইস ওকে আজ ফাইনাল এবং কাল তরা চলে যাচ্ছিস আরজুলুম। প্রায়  ৩৫ দিন পরে দিন পরে যাচ্ছি কাল আরজুলুম। আর ওরা সবাই সরি বললো যে এখানে কিছু সমস্যা হইছে সে জন্য সরি কিন্তু ঐখানে খুভ হেপি থাকবি ভি আই পি গেস্ট হাউজ।কষ্ট কি? দিছে বা কেনোইবা ছড়ি বলো তারা সিগারেট,ঠাণ্ডা খাওয়াচ্ছে নিজের পয়সায়,শাহাযুদ্দির চিকিৎসা হইছে প্রায় দের দুই লাখ খরছ করছেন ১২ দিন হসপিটাল ছিলো।পড়ের দিন গাড়ি আসলো সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে চলে গেলাম গাড়িতে সাথে ৬ জন সিকুরিটি পিছনে আমারা বসে আছি। কেমন যেন ভি আই পি লাকছে আগে কোনদিন এমন ভি আই পি সুবিধা পাইনি।ইরাকে যেও পাইছিলাম প্রায় মরার মত ডাবল বুলেটপ্রুফ জেকেট পড়াইয়া নিয়া ঘুরাইয়াছে। আর এখানে সাহেবের মত যেন আমরা সরকারী আমন্ত্রিত অথিতী।পৃথিবী কত সুন্দর জীবনে প্রথম অনূভব করলাম সেদিন চারিদিক সাদা ধবধব। তুষার ঝরছে গাছগাছালি তুষার ঘেরা। বিকেল ৫টা সামনে আর গাড়ি যাইবার মত না তাই

 আসামি আবশ্যক 

 হঠাৎ গাড়ি থামলো,কি? আমরা তো সজাগই ছিলাম কিন্তু একটি স্বপ্নজাল আটকে গেলাম সামনে গাড়ি যাবে  না।তুষার ঝরে রাস্তাঘাট বন্ধ হয়ে গেছে প্রায়।সাদা ধবধব কোন বাড়ি ঘড় দেখা যায় না।আমাদের গাড়ীটা একটা সেন্টার জেলের সামনে ধারালো। ওরা কলদিতেছে জেল এর চাবি নিয়া আসার জন্য।চার তালা জেল কম পক্ষে ৪ হাজার স্কার এবং ২ হাজার মানুষ ধারণ সম্পন্নো।প্রায় দের ঘণ্টা পরে একজন পুলিশ আসলো সে মনে হয় এখানে সিকুরিটি।আমাদের গাড়ি রাস্তায় রাখতে হলো কেনোনা এখানে কোন আসামি আসে না তাই গাড়ি আসার ও পুলিশ আসার প্রয়োজন নাই।আমার সপ্নে bingol province মিস ইউ।পুলিশ আমাদের কাছে এসে সরি বলিতেছে দেখ এখানে অনেক দিন যাবত আসামি নাই তাই জেল বন্ধ করে অফিসে গুমাই মাঝে পথ ভিরতি হয় বিদেশীদের তাই নিয়েই এত বড় জেলর তিপ্তি মেটে।আমি খাবার চাইলাম খুভ খিধা লাকছে সে বললো আমি তো তদের জন্য সরকারী খাবার ব্যবস্থা করতে পাড়বো না তা মনে হয় ইউসুফ হোটেল থেকে খাবার আনতে গেছে।আহারে পৃথিবী কেমন তা বরণায় শেষ করার মত নয়।আই লাভ ইউ Bingol province.  আমাদের ৯৯% গড বিশ্বস্ত দেশ গুলো  ভিবরণ দেওয়ার মত না।জন্ম তাদের উদ্দশ্য জিহাদে শরিক হওয়া তা কিংবা মরজিদ,গির্জা, মন্দির কিংবা লোকালয়ে বোম মারা।এদিক দিয়ে গড বিহীন দেশ গুলো ছেলে মেয়ে  গড বিশ্বস্ত দেশের মানুষ খাওয়াচ্ছেন কারণ গড যে রক্তপিপাসায় ভুকছে তাই তার সৃষ্টি জীবদের দেখভাল করতে পারছে না।